Rupsha

৳ 500.00

“টোট ব্যাগ” পাটের ব্যাগের ক্ষেত্রে সর্বাধিক পরিচিত এবং খুব জনপ্রিয়।ওজনে হালকা, সাথে অনেক বেশি জায়গা থাকায় মেয়েদের কাছে এই ব্যাগের আলাদা চাহিদা রয়েছে। চিত্রা, শীতলক্ষ্যার পর কালিন্দীতে যুক্ত হলো আরো একটি ফ্যাশনেবল টোট ব্যাগ – “রূপসা”। কালারফুল এই ব্যাগটি যে কোনো পোশাকের সাথে খুব সহজে মানিয়ে যাবে।
– সাইজঃ ১২.৫”×১২”×৪”।
– মেটেরিয়ালঃ পাটের ফেব্রিক এবং লেদার।

+
  •  Delivery & Return

    Delivery

    আমরা পুরো বাংলাদেশে হোম ডেলিভারি দিয়ে থাকি। ডেলিভারির সময় ২-৫ দিন। পণ্যের আকার, ওজন এবং আপনার লোকেশনের উপর নির্ভর করে ৮০-১৫০ টাকা ডেলিভারি চার্জ প্রযোজ্য।

    Return

    আমরা প্রতিটি পণ্য খুবই যত্নের সাথে কোয়ালিটি কন্ট্রোল করি। পণ্যটি নেওয়ার সময় অবশ্যই ভালোভাবে চেক করে নেওয়ার অনুরোধ রইল। এর পরও যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে ডেলিভারির ৭ দিনের মধ্যে রিফান্ডের (শর্ত সাপেক্ষে)  ব্যবস্থা আছে।

    Help

    যেকোন প্রয়োজনে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। Facebook: https://www.facebook.com/kalindi.com.bd Phone: +880 1810151890 Email: [email protected]

  Share

রূপসা

রূপসা নদীর উৎপত্তি খুলনা শহরের জেলখানা ঘাট এলাকার ভৈরব নদ থেকে। খুলনা সদর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে নদীটি বটিয়াঘাটা উপজেলার জলমা ইউনিয়নের কাজিবাছা নদীতে মিশেছে। পদ্মার একটি শাখা নদী রূপসা। দৈর্ঘ্য ৯ কিলোমিটার এবং গড় প্রস্থ ৪৮৬ মিটার। শুষ্ক মৌসুমে রূপসার গভীরতা ১২ মিটারের মতো। বর্ষা মৌসুমে এর গভীরতা ১৭ মিটার ছাড়িয়ে যায়। বর্ষাকালে রূপসা নদীতে পানি প্রবাহ ১০ হাজার ৫০০ কিউসেক। দক্ষিণে মোংলা বন্দরের কাছে পশুর নামে প্রবাহিত হয়ে রূপসা নদী ত্রিকোণা ও দুবলা দ্বীপদুটির ডানদিক দিয়ে বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়েছে। রূপসা ও ভৈরব নদ খুলনা শহরের কাছে মিলিত হয়েছে। ভৈরব নদের দক্ষিণ তীরে রেণীগঞ্জ নামক স্থানে পুরাতন খুলনা অবস্থিত ছিল। অত্যাচারী নীলকর রেণী সাহেবের নামে এই স্থান রেণীগঞ্জ হয়।

প্রায় ৩০০ বছর আগে, ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে নড়াইল জেলার ধোন্দা গ্রামে রূপচাঁদ সাহা নামক একজন লবণ ব্যবসায়ী ছিলেন। নৌকায় করে লবণ নিয়ে যাতায়াত করতেন তিনি। কাঁচিপাতা আর ভৈরবের মাঝে সামান্য স্থলভাগ থাকায় জলপথে অনেকদূর ঘুরে যেতে হত। সময় বাঁচাতে তিনি ভৈরব নদ ও কাঁচিপাতা নদীর মাঝে সংযোগ খাল তৈরি করেন। রূপচাঁদ সাহার নামানুসারে খালটির নামকরণ করা হয় রূপ সাহার খাল। কাঁচিপাতা নদী এখন কাজিবাছা নামে পরিচিত। আর সেই খাল এখন ভৈরবের মূল স্রোত রূপসা নদী। জীবনানন্দ দাশের ‘আবার আসিব ফিরে’ কবিতায় রূপসা নদীর কথা উল্লেখ আছে। ‘যশোহর খুলনার ইতিহাস’ গ্রন্থের রচয়িতা প্রখ্যাত ঐতিহাসিক সতীশচন্দ্র মিত্রের বাড়িও এই রূপসা নদীর তীরে। বৃটিশ বিরোধী স্বদেশী আন্দোলনের ইতিহাস নিয়ে ‘রূপসা নদীর বাঁকে’ চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তানভীর মোকাম্মেল। এই নদীর তীরে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের সমাধিস্থল। এখনও প্রতি বছর এই নদীতে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

সাংস্কৃতিক গুরুত্বের পাশাপাশি খুলনা অঞ্চলের শিল্প-বাণিজ্যের অনেকটাই রূপসা নদী কেন্দ্রিক। খুলনার খালিশপুরে রুপসা পাড়ে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ঘাঁটি বানৌজা তিতুমীর ও খুলনা শিপইয়ার্ড অবস্থিত। রূপসা নদীর তীরবর্তী জেলখানা ফেরিঘাটের বিপরীত পাড়ে আছে রাজাপুর সল্ট রিফাইনারি লিমিটেড।

 

Rupsha

The Rupsha River originates from the Bhairab River at the Jailkhana Ghat area in Khulna city. It flows through Khulna Sadar and merges with the Kazibacha River in the Jalma Union of Batiaghata Upazila. The Rupsha is a branch of the Padma River, stretching 9 kilometers in length with an average width of 486 meters. During the dry season, the river’s depth is around 12 meters, which increases to over 17 meters during the monsoon season. The water flow during the monsoon reaches 10,500 cusecs. Flowing southward, it becomes known as the Pashur River near the Mongla Port and eventually empties into the Bay of Bengal, passing by the Trikona and Dubla islands. The Rupsha and Bhairab rivers converge near Khulna city, where old Khulna was located on the southern bank of the Bhairab at a place called Renigunj, named after the notorious indigo planter Mr. Rennie.

Approximately 300 years ago, in the mid-19th century, a salt trader named Rupchand Saha lived in Dhonda village of Narail district. He transported salt by boat but faced a significant detour due to a small land barrier between Kachipata and Bhairab. To save time, he dug a connecting canal between these two rivers. This canal, named Rup Saha’s Canal after him, is now the main flow of the Bhairab, known today as the Rupsha River. The Kachipata River is currently known as the Kazibacha River. The Rupsha River is mentioned in Jibanananda Das’s poem “Abar Ashibo Phire”. The famous historian Satish Chandra Mitra, author of “History of Jessore and Khulna,” also lived on its banks. Filmmaker Tanvir Mokammel created a movie titled “Rupsha Nodir Banke,” which delves into the history of the anti-British Swadeshi movement. The riverbank also holds the grave of martyr Bir Shreshtha Ruhul Amin, who died in the Liberation War of 1971. Traditional boat race competitions are still held annually on the Rupsha River.

In addition to its cultural significance, the Rupsha River is crucial to the industrial and commercial activities in the Khulna region. The Bangladesh Navy base BNS Titumir and the Khulna Shipyard are located on the river’s banks in Khalishpur, Khulna. Opposite the Jailkhana Ferry Ghat is the Rajapur Salt Refinery Limited, underscoring the river’s importance to local industry and trade.

SKU: N/A Categories: , Tags: ,
Close My Cart
Close Wishlist
Recently Viewed Close
Close

Close
Navigation
Categories